সংবাদ শিরোনামঃ
আলিফ মীম হাসপাতালের শেয়ার হোল্ডারদের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি জেলা বিএমএ ও স্বাচিপের সভাপতি ডা: জাকির হোসেন উপজেলা নির্বাচনে প্রচারণায় অংশ না নিতে এমপি আনোয়ার খাঁনকে চিঠি লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী এডভোকেট রহমত উল্যাহ বিপ্লবের কিছু কথা লক্ষ্মীপুরের কৃতিসন্তান আনোয়ারুল হক ছলেমা খাতুন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান কামাল ফার্মারের  জন্মদিনে তিনি সকলের আশির্বাদ /দোয়া প্রার্থী লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দক্ষিণ হামছাদি ইউপি নির্বাচনে মীর শাহআলম চেয়ারম্যান নির্বাচিত লক্ষ্মীপুরের উপশহর দালাল বাজার ইউপি নির্বাচনে এডভোকেট নজরুল ইসলাম চেয়ারম্যান নির্বাচিত অনিয়মে চাকরিচ্যুত হবেন কর্মকর্তারা, ফেক্ট- উপজেলা পরিষদ নির্বাচন লক্ষ্মীপুরে শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ পুরস্কার নিয়ে বির্তক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন লক্ষ্মীপুর -১ আসনের ড, আনোয়ার খান এম পির বড় ভাই আখতার খান রায়পুর উপজেলার উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে পুনরায় অধ্যক্ষ মামুনের চেয়ারম্যান হওয়া প্রয়োজন লক্ষ্মীপুর জেলায় ৮ম: বারের মতো শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হলে মোঃ এমদাদুল হক দালাল বাজার ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান হিসেবে কাকে ভোট দিবেন? লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দালাল বাজার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৪নং ওয়ার্ডে মেম্বার পদপ্রার্থী কাজল খাঁনের গণজোয়ার লক্ষ্মীপুরের উপশহর দালাল বাজার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী পাঁচজন,কে হবেন চেয়ারম্যান ? বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ওমান সুর শাখার সহ-সাধারন সম্পাদক কামাল হোসেনের ঈদের শুভেচ্ছা, ঈদ মোবারক
মফস্বল সাংবাদিকদের জন্য সরকারের নেই কোনো প্রণোদনা

মফস্বল সাংবাদিকদের জন্য সরকারের নেই কোনো প্রণোদনা

বিশেষ প্রতিনিধি- সারা বিশ্বে আতঙ্কিত প্রানঘাতী করোনার দুঃসময়ে জেলা ও উপজেলার সাংবাদিকরা তথ্যসেবা প্রদান করলেও নেই কোনো সরকারের প্রণোদনা ভাতা। নেই কোনো পত্রিকা অফিস থেকে বেতন-ভাতা। তারপরও থেমে নেই, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে, মৃত্যুর কাফন মাথায় নিয়ে বর্তমান সংকটময় পরিস্থিতিতে সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাব, বিডিআর, আনছার, ডাক্তার ও নার্সদের পাশে থেকে প্রতিনিয়ত জরুরি তথ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছেন সাংবাদিকরা। এই ঝুঁকিময় সময়ে আপডেড খবর প্রকাশ করে যাচ্ছে বীর সৈনিকেরা।

সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাব, বিডিআর, আনছার ও ডাক্তার এরা সকলেই বেতনভুক্ত, প্রতিমাসে তারা বেতন পাচ্ছেন এর পরও প্রধানমন্ত্রী করোনা পরিস্থিতির কারণে তাদের বিভিন্ন ধরনের আর্থিক প্রণোদনা দিচ্ছেন। কিন্ত জেলা ও উপজেলা সাংবাদিকরা বিনা পারিশ্রমিকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তথ্য সংগ্রহ করে তা জনগণের দোড় গোড়ায় পৌঁছে দিচ্ছে। বর্তমানে জেলা ও উপজেলা সাংবাদিকের অবস্থা এমনটাই দাঁড়িয়েছে যে, নূন আনতে পানতা ফুরানোর মতো। তাদের অবস্থা নিম্নবিত্ত পরিবারের চেয়েও খারাপ, তবুও তারা থেমে নেই, ধার দেনা করে ওয়াইফাই বা মোবাইলের মাধ্যমে ডাটা কিনে দেশবাসীকে তথ্য সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। যেমনটি ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় জীবনবাজি রেখে সাংবাদিকরা সংবাদ সংগ্রহ করে তা প্রচার করেছিল, ঠিক তেমনি দেশের এই ক্লান্তিলগ্নে জেলা ও উপজেলার সাংবাদিকরা জীবনবাজি রেখে তথ্যসেবা প্রদান করে যাচ্ছেন। সূত্র মতে, দেশে দুই ধরনের সাংবাদিক আছে।

একটি ঢাকার সাংবাদিক অন্যটি ঢাকার বাইরের জেলা ও উপজেলা সাংবাদিক, ঢাকার সাংবাদিকরা একেকজন এক একটি বিটের উপর সংবাদ সংগ্রহ করে এবং তারা সুনির্দিষ্ট একটি বেতন পায়।

বাকি জেলা উপজেলা সাংবাদিকদের সুনিদিষ্ট কোনো বিট নেই, বেতন-ভাতাও নেই, তারা নিজেরাই ক্যামেরাম্যান আবার নিজেরাই সংবাদ লেখক। বেতন-ভাতা নেই তারপরও তাদের উপর চাপিয়ে দেয়া হয় বিজ্ঞাপন সংগ্রহের কাজ, অনেক তেল পানি খরচ করে বিজ্ঞাপন সংগ্রহ করে পাঠিয়ে স্ব-স্ব পত্রিকাকে ছাপানোর পর বিলের কমিশনটাও ঠিকমত পান না তারা। বহু সাংবাদিক অসহায় অবস্থায় দিনযাপন করছে। তাদের প্রতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনার একটু সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন। মহান মুক্তিযুদ্ধে যেমন বহু সাংবাদিকের অবদান রয়েছে তেমনি স্বাধীনতার পরেও রাষ্ট্রের বিভিন্ন সুখে-দুঃখে এই পেশার মানুষগুলোর অনেক অবদান রেখে চলেছে। দেশের এই দুর্দিনে সকল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও ডাক্তার-নার্সের পাশাপাশি করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সাংবাদিকরাও আছে তথ্য প্রদানের সন্ধানে।