সংবাদ শিরোনামঃ
লক্ষ্মীপুর পৌরসভার সড়কের পাশে আবর্জনার স্তূপ, নির্গত দুর্গন্ধ ও ধোঁয়ায় দূষিত হচ্ছে পরিবেশ লক্ষ্মীপুরে শিক্ষক- শিক্ষিকার বিরুদ্ধে পরকীয়ার অভিযোগ লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দালাল বাজার ইউনিয়নে স্কুল শিক্ষক ও শিক্ষিকার অনৈতিক সম্পর্ক, শিক্ষিকার স্বামীর অভিযোগ লক্ষ্মীপুর ২ আসনের মানবিক এমপি নুরউদ্দিন আলিফ মীম হাসপাতালের শেয়ার হোল্ডারদের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি জেলা বিএমএ ও স্বাচিপের সভাপতি ডা: জাকির হোসেন উপজেলা নির্বাচনে প্রচারণায় অংশ না নিতে এমপি আনোয়ার খাঁনকে চিঠি লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী এডভোকেট রহমত উল্যাহ বিপ্লবের কিছু কথা লক্ষ্মীপুরের কৃতিসন্তান আনোয়ারুল হক ছলেমা খাতুন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান কামাল ফার্মারের  জন্মদিনে তিনি সকলের আশির্বাদ /দোয়া প্রার্থী লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দক্ষিণ হামছাদি ইউপি নির্বাচনে মীর শাহআলম চেয়ারম্যান নির্বাচিত লক্ষ্মীপুরের উপশহর দালাল বাজার ইউপি নির্বাচনে এডভোকেট নজরুল ইসলাম চেয়ারম্যান নির্বাচিত অনিয়মে চাকরিচ্যুত হবেন কর্মকর্তারা, ফেক্ট- উপজেলা পরিষদ নির্বাচন লক্ষ্মীপুরে শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ পুরস্কার নিয়ে বির্তক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন লক্ষ্মীপুর -১ আসনের ড, আনোয়ার খান এম পির বড় ভাই আখতার খান রায়পুর উপজেলার উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে পুনরায় অধ্যক্ষ মামুনের চেয়ারম্যান হওয়া প্রয়োজন লক্ষ্মীপুর জেলায় ৮ম: বারের মতো শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হলে মোঃ এমদাদুল হক
মাদকের ডোপ টেস্ট পজেটিভ: ১০ পুলিশের চাকরি নেই

মাদকের ডোপ টেস্ট পজেটিভ: ১০ পুলিশের চাকরি নেই

ভিবি নিউজ ডেস্কঃ
মাদকাসক্তির প্রমাণ পাওয়ায় ঢাকা মহানগর পুলিশের দশ সদস্যকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। মহানগর পুলিশের উপ কমিশনার (মিডিয়া) ওয়ালিদ হোসেন রোববার গণমাধ্যকে এ তথ্য জানান।

বর্তমান পুলিশ কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম গতবছর সেপ্টেম্বরে দায়িত্ব নেওয়ার পর পুলিশ সদস্যদের ডোপ টেস্ট করার ঘোষণা দেন।
তাতে এ পর্যন্ত ৬৮ জনের মাদক নেওয়ার প্রমাণ পাওয়া গেছে জানিয়ে একজন জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, তাদের মধ্যে ৭ জন এসআই, একজন সার্জেন্ট, ৫ জন এএসআই, ৫ জন নায়েক এবং ৫০ জন কনস্টেবল।

তাদের মধ্যে ৪৩ জনের বিরুদ্ধে পুলিশের বিভাগীয় মামলা করা হয় এবং ১৮ জনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। মামলা নিষ্পত্তি শেষে ওই ১৮ জনের মধ্যে ১০ জনকেই চাকরিচ্যুত করা হয়েছে বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

কেবল মাদক সেবন নয়, মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত থাকা, মাদক দিয়ে কাউকে ফাঁসানো, উদ্ধার করা মাদক জব্দ তালিকায় কম দেখানোর মত অভিযোগও রয়েছে এই পুলিশ সদস্যদের কারও কারও বিরুদ্ধে।

উপ কমিশনার ওয়ালিদ হোসেন বলেন, “এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া। মাদকের ব্যাপারে আমরা জিরো টলারেন্স নীতি নিয়ে চলি। এখানে কাউকে ছাড় দেওয়ার সুযোগ নেই।
আইনজীবি বা আওয়ামীলীগ দলীয় নেতাকর্মীদের ডোপ টেস্ট করা হবে কিনা জানতে চাইলে লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও সিনিয়র এডভোকেট মিজানুর রহমান মুন্সি বলেন, আমাদের দলের সভানেত্রী ও মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষনা করেছেন। এরই ধারাবাহিকতায় প্রথমে পুলিশ ডিপার্টমেন্ট দিয়ে ডোপ টেস্ট শুরু করা হয়েছে। তাতে দশজন জন পুলিশের চাকুরী চলে গেছে এবং হয়তো শীঘ্রই অন্যান্য ডিপার্টমেন্টেও ডোপ টেস্ট করা শুরু হতে পারে।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, আমাদের আওয়ামীলীগ দলীয় নেতাকর্মী বা আইনজীবিদের মধ্যে এরকম ডোপ টেস্ট হবে কিনা তা আমার জানা নেই।