সংবাদ শিরোনামঃ
লক্ষ্মীপুর জেলায় ৮ম: বারের মতো শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হলে মোঃ এমদাদুল হক দালাল বাজার ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান হিসেবে কাকে ভোট দিবেন? লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দালাল বাজার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৪নং ওয়ার্ডে মেম্বার পদপ্রার্থী কাজল খাঁনের গণজোয়ার লক্ষ্মীপুরের উপশহর দালাল বাজার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী পাঁচজন,কে হবেন চেয়ারম্যান ? বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ওমান সুর শাখার সহ-সাধারন সম্পাদক কামাল হোসেনের ঈদের শুভেচ্ছা, ঈদ মোবারক এমপি ও মন্ত্রী হতে নয় বরং মানুষের পাশে দাঁড়াতে আ.লীগ করি, সুজিত রায় নন্দী বাড়ছে ভুয়া সাংবাদিকদের দৌরাত্ম্য, নিয়ন্ত্রণে কার্যকরী পদক্ষেপ চাই বাড়ছে ভুয়া সাংবাদিকদের দৌরাত্ম্য, নিয়ন্ত্রণে কার্যকরী পদক্ষেপ চাই লক্ষ্মীপুরে বিনা তদবিরে পুলিশে চাকরি পেল ৪৪ নারী-পুরুষ দুস্থ মানবতার সেবায় এগিয়ে আসা “সমিতি ওমান ” কর্তৃক চট্টগ্রামে ইফতার সামগ্রী বিতরণ দলিল যার, জমি তার- নিশ্চিতে আইন পাস লক্ষ্মীপুরে প্রতারণার ফাঁদ পেতেছে পবিত্র কুমার  লক্ষ্মীপুর সংরক্ষিত আসনের মহিলা সাংসদ আশ্রাফুন নেসা পারুল রায়পুরে খেজুর রস চুরির প্রতিবাদ করায় বৃদ্ধকে মারধরের অভিযোগ লক্ষ্মীপুরে আলোচিত রীয়া ধর্ষণের বিষয়ে আদালতে মামলা
পাপুল একজন ‘মাফিয়া বস’ কুয়েতে ১৪০ কোটি টাকার সম্পদ গড়েছেন, অর্থপাচার করেছেন যুক্তরাষ্ট্রেও

পাপুল একজন ‘মাফিয়া বস’ কুয়েতে ১৪০ কোটি টাকার সম্পদ গড়েছেন, অর্থপাচার করেছেন যুক্তরাষ্ট্রেও

স্টাফ রিপোর্টার

কুয়েতে কারাগারে থাকা বাংলাদেশের সংসদ সদস্য শহিদ ইসলাম পাপুল দেশটিতে পাঁচ মিলিয়ন দিনার সম্পদের মালিক, বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ১৪০ কোটি টাকা। দেশটির তদন্ত প্রতিবেদনে এ কথা উল্লেখ করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার কুয়েতের দৈনিক আল কাবাস’র বরাত দিয়ে সেদেশের সংবাদমাধ্যম দ্য টাইমস এ তথ্য জানিয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার কুয়েতে এমপি পাপুলকে মানব ও অর্থপাচারের দায়ে চার বছরের কারাদ- ও ১৯ লাখ কুয়েতি দিনার অর্থদন্ড- দিয়েছে দেশটির আদালত।

সংবাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কুয়েতের তদন্তকারীরা বাংলাদেশের সংসদ সদস্য ও মারাফি কুয়েতিয়া প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী শহিদ ইসলাম পাপুলের বিরুদ্ধে তদন্ত করে জানতে পেরেছেন যে দেশটিতে তিনি পাঁচ মিলিয়ন দিনার সম্পদ করেছেন। বাংলাদেশি মুদ্রায় এই অর্থের পরিমাণ ১৩৯ কোটি ৭০ লাখ ৪৯ হাজার ৬২৩ টাকা।

সংবাদ প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, তদন্ত চলাকালে পাপুল ও তার প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক অ্যাকাউন্টগুলো জব্দ করা হয়েছিল। সাক্ষীদের বক্তব্য থেকে জানা গেছে, আসামি পাপুল একটি সংগঠিত চক্রের অংশ। এই চক্র এক কুয়েতি নাগরিক গড়ে তুলেছিলেন। এতে আরও বলা হয়েছে, পাপুল কুয়েতি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের নাম ব্যবহার করে বাংলাদেশ থেকে জালিয়াতির মাধ্যমে শ্রমিক নিতেন। শ্রমিকদের কাছ থেকে সেই প্রতিষ্ঠানে চাকরি দেয়া ও ওয়ার্ক ভিসার কথা বলে অবৈধভাবে ২,৫০০ থেকে ২,৭০০ দিনার নেয়া হতো।

আল কাবাস’র বরাত দিয়ে দ্য টাইমস’র প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বাংলাদেশ থেকে ২০ হাজারের বেশি শ্রমিক কুয়েতে এনে আসমিরা ৫০ মিলিয়ন দিনারের বেশি আয় করেছেন।

সংবাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বৃহস্পতিবার কুয়েতে এমপি পাপুলকে মানব ও অর্থপাচারের দায়ে চার বছরের কারাদন্ডের সঙ্গে ১৯ লাখ কুয়েতি দিনার জরিমানা দিয়েছে দেশটির আদালত।

এতে আরও বলা হয়েছে, পাপুলের সহযোগী কুয়েতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রশিক্ষণ বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট আন্ডারসেক্রেটারি মেজর জেনারেল শেখ মাজেন আল-জারাহকেও একই শাস্তি দেয়া হয়েছে। এ মামলায় কুয়েতের এমপি সাদৌন হাম্মাদ ও দেশটির সাবেক এমপি সালাহ খুরশিদকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে।

স্থানীয় দৈনিকে বলা হয়েছে, এমপি পাপুলের বিরুদ্ধে মানব ও অর্থপাচার, কুয়েতের আইন অমান্য করে কর্মী নিয়োগে জালিয়াতি ও ঘুষের অভিযোগ আনা হয়েছিল।

এতে আরও বলা হয়েছে, আইন অমান্য করায় সেই প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ করে দেয়ায় শ্রমিকরা কুয়েতে এসে দেখেন তাদের ভিসা নকল। তখন তাদের জোর করে পাপুলের মালিকানাধীন অন্য একটি প্রতিষ্ঠানে কাজ দেয়া হয়।

প্রতিবেদন মতে, সাক্ষী দেয়া শ্রমিকরা জানিয়েছেন, চুক্তিতে যে বেতন ও আবাসনের কথা বলা হয়েছিল তা না মেনে শ্রমিকদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে দীর্ঘ সময় মানবেতর পরিবেশে কাজ করানো হতো। কোনো শ্রমিক এর প্রতিবাদ করলে তাকে মারধর করা হতো এবং মিথ্যা মামলার ভয় দেখানো হতো।

সাক্ষীরা আরও বলেছেন, বাংলাদেশে এমপি পাপুলের মালিকানাধীন ট্রাভেল এজেন্সির মাধ্যমে তাদের কুয়েতে আনা হয়েছিল।

প্রতিবেদন মতে, তদন্তে আরও জানা গেছে এমপি পাপুল অবৈধ উপায়ে অর্থ সংগ্রহ করতেন। তিনি ইচ্ছাকৃতভাবে আয়ের উৎস গোপন রাখতেন এবং কুয়েতের সরকারি কর্মকর্তাদের ঘুষ দিয়ে মানবপাচার করতেন।

পাপুল প্রথমে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন এবং কোনো অপরাধের সঙ্গে তার সংশ্লিষ্টতা নেই বলে দাবি করেছিলেন। পরে, তার বাসা ও প্রতিষ্ঠানে তল্লাশি চালিয়ে এসব অপরাধের প্রমাণ পাওয়া গিয়েছিল বলে সংবাদ প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পাপুল ‘বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে’ তার বন্ধুদের উপহার দেয়ার কথা স্বীকার করেছেন। এর বিনিময়ে তারা তার প্রতিষ্ঠানকে সহায়তা দিয়েছিল বলেও জানিয়েছেন তিনি।

পাপুল ‘মাফিয়া বস’র মতো কাজ করার অভিযোগেও অভিযুক্ত উল্লেখ করে সংবাদ প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, তিনি গরিব ও স্বল্প আয়ের শ্রমিকদের থেকে অর্থ আদায় করতেন।

পাপুলের লোকেরা শ্রমিকদের কাছ থেকে প্রতিদিন ৮ কুয়েতি দিনার করে ‘রয়েলটি’ আদায় করতো বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে আরও বলা হয়েছে, সাক্ষী ১১ বাংলাদেশি শ্রমিক আদালতকে জানিয়েছেন যে তারা শুধুমাত্র ভিসার জন্যেই বিপুল পরিমাণ অর্থ দেননি, ভিসা নবায়নের জন্যেও অর্থ দিতেন।

প্রতিবেদন মতে, জেরা করার সময় পাপুল কুয়েতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তাকে ১ দশমিক ১ মিলিয়ন দিনারের চেক দেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন বলে জানা গেছে।

পাপুল আরও এক কর্মকর্তাকে ১ মিলিয়ন দিনার নগদ দিয়েছেন ও অন্য এক কর্মকর্তাকেও কয়েক মিলিয়ন দিনার ভর্তি ‘ব্যাগ’ দিয়েছেন বলে কুয়েতের সংবাদমাধ্যমে উল্লেখ করা হয়েছে।

সংবাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কুয়েতের আদালত পাপুলের মাধ্যমে আসা বাংলাদেশি শ্রমিকদের কাছ থেকে সাক্ষ্য নিয়েছেন। পাপুল ‘ভিসা বাণিজ্য’ করে যুক্তরাষ্ট্রে টাকা পাচার করেছেন বলেও প্রতিবেদনে রয়েছে। এতে আরও বলা হয়েছে, তদন্ত শুরুর আগে পাপুল যখন জানতে পারেন যে এই তদন্তে তার নাম রয়েছে তখন তিনি কয়েকটি সন্দেহভাজন অ্যাকাউন্ট থেকে কয়েক মিলিয়ন দিনার ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি ব্যাংকে পাঠিয়েছেন। সেসময় তিনি কুয়েত ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন বলেও সংবাদ প্রতিবেদনটিতে জানানো হয়েছে।