সংবাদ শিরোনামঃ
আলিফ মীম হাসপাতালের শেয়ার হোল্ডারদের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি জেলা বিএমএ ও স্বাচিপের সভাপতি ডা: জাকির হোসেন উপজেলা নির্বাচনে প্রচারণায় অংশ না নিতে এমপি আনোয়ার খাঁনকে চিঠি লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী এডভোকেট রহমত উল্যাহ বিপ্লবের কিছু কথা লক্ষ্মীপুরের কৃতিসন্তান আনোয়ারুল হক ছলেমা খাতুন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান কামাল ফার্মারের  জন্মদিনে তিনি সকলের আশির্বাদ /দোয়া প্রার্থী লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দক্ষিণ হামছাদি ইউপি নির্বাচনে মীর শাহআলম চেয়ারম্যান নির্বাচিত লক্ষ্মীপুরের উপশহর দালাল বাজার ইউপি নির্বাচনে এডভোকেট নজরুল ইসলাম চেয়ারম্যান নির্বাচিত অনিয়মে চাকরিচ্যুত হবেন কর্মকর্তারা, ফেক্ট- উপজেলা পরিষদ নির্বাচন লক্ষ্মীপুরে শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ পুরস্কার নিয়ে বির্তক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন লক্ষ্মীপুর -১ আসনের ড, আনোয়ার খান এম পির বড় ভাই আখতার খান রায়পুর উপজেলার উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে পুনরায় অধ্যক্ষ মামুনের চেয়ারম্যান হওয়া প্রয়োজন লক্ষ্মীপুর জেলায় ৮ম: বারের মতো শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হলে মোঃ এমদাদুল হক দালাল বাজার ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান হিসেবে কাকে ভোট দিবেন? লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দালাল বাজার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৪নং ওয়ার্ডে মেম্বার পদপ্রার্থী কাজল খাঁনের গণজোয়ার লক্ষ্মীপুরের উপশহর দালাল বাজার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী পাঁচজন,কে হবেন চেয়ারম্যান ? বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ওমান সুর শাখার সহ-সাধারন সম্পাদক কামাল হোসেনের ঈদের শুভেচ্ছা, ঈদ মোবারক
সওজ’র জনবলের অভাবে দেশের সড়কগুলো ঠিকমতো রক্ষণাবেক্ষণ করা সম্ভব হচ্ছে না

সওজ’র জনবলের অভাবে দেশের সড়কগুলো ঠিকমতো রক্ষণাবেক্ষণ করা সম্ভব হচ্ছে না

জনতা ডেস্ক ঃসড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর মোট অনুমোদিত জনবলের মাত্র অর্ধেক কর্মী নিয়ে সারােেদশে কার্যক্রম পরিচালনা করছে। ফলে সংস্থাটির পক্ষে দেশের সড়কগুলো ঠিকমতো রক্ষণাবেক্ষণ করা সম্ভব হচ্ছে না। সওজ’র অধীনে ২২ হাজার কিলোমিটারেরও বেশি সড়ক রয়েছে। আর সংস্থাটির আওতা থাকা ছোট-বড় সেতু ও কালভার্টের সংখ্যা ১৯ হাজার ২১৮টি। সেব সড়ক, সেতুর নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ, উন্নয়নের পাশাপাশি প্রতিনিয়ত সড়ক নেটওয়ার্কের পরিধি বাড়াতে সংস্থাটি কাজ করে যাচ্ছে। তবে জনবল সংকটই সওজ অধিদপ্তরের সামনে এগিয়ে যাওয়ার পথে বড় বাধা হয়ে দেখা দিয়েছে। সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, সাংগঠনিক কাঠামো অনুযায়ী সওজ অধিদপ্তরের মোট পদের সংখ্যা ৯ হাজার ৪৩১টি। তার মধ্যে ৪ হাজার ৫৪১টি পদই শূন্য। সবচেয়ে বেশি শূন্য রয়েছে তৃতীয় শ্রেণীর পদ। বর্তমানে ২ হাজার ৫৭০টি তৃতীয় শ্রেণীর পদ শূন্য। আর চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী ক্যাটাগরিতে শূন্য পদের সংখ্যা ১ হাজার ৫২২টি। দ্বিতীয় শ্রেণীর কর্মকর্তার পদ শূন্য রয়েছে ২১৪টি। আর প্রথম শ্রেণীতে শূন্য পদ আছে ২০৪টি। সওজ অধিদপ্তরের শীর্ষ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও পাবলিক সার্ভিস কমিশনে (পিএসসি) প্রস্তাব, পদোন্নতি, নতুন করে নিয়োগ কার্যক্রমের মাধ্যমে ওসব শূন্য পদ পূরণের চেষ্টা করা হচ্ছে।

সূত্র জানায়, সওজ’র প্রথম শ্রেণীর ২০৪টি শূন্য পদের মধ্যে সরাসরি নিয়োগযোগ্য সহকারী প্রকৌশলীর (সিভিল/যান্ত্রিক) ৮৬টি পদ পূরণের প্রস্তাব

পিএসসিতে পাঠানো হয়েছে। বিভাগীয় পদোন্নতির মাধ্যমে আরো ৬টি পদ পূরণের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। আর পদোন্নতির মাধ্যমে ৮টি পদ পূরণের জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। যদিও পদোন্নতির মাধ্যমে পূরণযোগ্য ৬৩টি পদ পূরণের জন্য সওজ অধিদপ্তরে কোনো যোগ্য কর্মকর্তা নেই। পাশাপাশি নন-ক্যাডারের ৭টি পদ পূরণের জন্য সরাসরি নিয়োগের প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। তাছাড়া দ্বিতীয় শ্রেণীর ৮২টি পদ পূরণের জন্য পিএসসিতে চাহিদাপত্র দিয়েছে সওজ অধিদপ্তর। আর মামলার কারণে আটকে আছে আরো ৬০টি পদে নিয়োগ। যেগুলো বিভাগীয় পদোন্নতির মাধ্যমে পূরণ হওয়ার কথা। অন্যদিকে পদোন্নতির মাধ্যমে পূরণযোগ্য ২০টি পদে সংস্থাটিতে কোনো যোগ্য কর্মকর্তা নেই। আর শূন্য ২১৪টি পদের মধ্যে বাকি ৪০টি পূরণের জন্য শিগগির প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানা যায়। সূত্র আরো জানায়, সওজ অধিদপ্তর তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী পদেসবচেয়ে বেশি জনবল সংকটে ভুগছে। এ ক্যাটাগরিতে সংস্থাটিতে শূন্য পদের সংখ্যা ২ হাজার ৫৭০টি। ওসব শূন্য পদের মধ্যে ৬১২টি পদোন্নতির মাধ্যমে পূরণযোগ্য। তবে যোগ্য কর্মচারীর অভাবে ওসব শূন্য পদ পূরণ সম্ভব হচ্ছে না। আদালতে রিট পিটিশন থাকায় ১৭৩টি পদে ওয়ার্কচার্জড কর্মচারীদের নিয়মিত করা সম্ভব হচ্ছে না। আবার চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীর ২৩১ পদ পদোন্নতির মাধ্যমে পূরণযোগ্য। তবে যোগ্য কর্মচারীর অভাবে ওসব পদ পূরণ করা সম্ভব হচ্ছে না। ৮টি রিট পিটিশনে আটকে আছে ওয়ার্কচার্জড সংস্থাপনে কর্মরত ৩২৪ কর্মচারীর নিয়মিতকরণ। ফলে অপ্রতুল জনবলের কারণে ঠিকমতো দেশের সড়কগুলো রক্ষণাবেক্ষণ করা সম্ভব হচ্ছে না।

এদিকে পরিকল্পনা কমিশনের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) একাধিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অপ্রতুল জনবলের কারণে অধিদপ্তরের একজন প্রকৌশলীকে একাধিক প্রকল্পে দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে। তাতে ওসব প্রকল্পের কাজে গুণগত মান ঠিক রাখা অনেক ক্ষেত্রেই সম্ভব হয় না। পাশাপাশি জনবল সংকটের কারণে অধিদপ্তরের বিভিন্ন নিয়মিত কার্যক্রমও বিঘি্নত হচ্ছে। অন্যদিকে জনবল সঙ্কট প্রসঙ্গে সওজ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী কাজী শাহিরয়ার হোসেন জানান, শূন্য পদগুলোয় নিয়োগের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। পাশাপাশি শেষ পর্যায়ে অধিদপ্তরের নতুন একটি জনবল কাঠামো তৈরির কাজ। নতুন জনবল কাঠামো অনুমোদন হলে অধিদপ্তরের কার্যক্রম আরো বেশি গতিশীল হবে।