সংবাদ শিরোনামঃ
উপজেলা নির্বাচনে প্রচারণায় অংশ না নিতে এমপি আনোয়ার খাঁনকে চিঠি লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী এডভোকেট রহমত উল্যাহ বিপ্লবের কিছু কথা লক্ষ্মীপুরের কৃতিসন্তান আনোয়ারুল হক ছলেমা খাতুন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান কামাল ফার্মারের  জন্মদিনে তিনি সকলের আশির্বাদ /দোয়া প্রার্থী লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দক্ষিণ হামছাদি ইউপি নির্বাচনে মীর শাহআলম চেয়ারম্যান নির্বাচিত লক্ষ্মীপুরের উপশহর দালাল বাজার ইউপি নির্বাচনে এডভোকেট নজরুল ইসলাম চেয়ারম্যান নির্বাচিত অনিয়মে চাকরিচ্যুত হবেন কর্মকর্তারা, ফেক্ট- উপজেলা পরিষদ নির্বাচন লক্ষ্মীপুরে শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ পুরস্কার নিয়ে বির্তক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন লক্ষ্মীপুর -১ আসনের ড, আনোয়ার খান এম পির বড় ভাই আখতার খান রায়পুর উপজেলার উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে পুনরায় অধ্যক্ষ মামুনের চেয়ারম্যান হওয়া প্রয়োজন লক্ষ্মীপুর জেলায় ৮ম: বারের মতো শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হলে মোঃ এমদাদুল হক দালাল বাজার ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান হিসেবে কাকে ভোট দিবেন? লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দালাল বাজার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৪নং ওয়ার্ডে মেম্বার পদপ্রার্থী কাজল খাঁনের গণজোয়ার লক্ষ্মীপুরের উপশহর দালাল বাজার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী পাঁচজন,কে হবেন চেয়ারম্যান ? বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ওমান সুর শাখার সহ-সাধারন সম্পাদক কামাল হোসেনের ঈদের শুভেচ্ছা, ঈদ মোবারক এমপি ও মন্ত্রী হতে নয় বরং মানুষের পাশে দাঁড়াতে আ.লীগ করি, সুজিত রায় নন্দী
কোভিড-১৯ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট স্বল্পতায় নমুনা পরীক্ষায় হিমশিম

কোভিড-১৯ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট স্বল্পতায় নমুনা পরীক্ষায় হিমশিম

 

স্টাফ রিপোর্টার
কোভিড-১৯ মোকাবেলায় নমুনা পরীক্ষার উপর জোর দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, একই কথা বিশেষজ্ঞদেরও। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ এই কাজটিতে যাদের ভূমিকা থাকে, সেই মেডিকেল টেকনোলজিস্ট প্রয়োজনের তুলনায় কম থাকায় নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষায় হিমশিম অবস্থা বাংলাদেশে। এই সঙ্কট মোকাবেলায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের চাহিদাপত্র পেয়ে এরই মধ্যে দুই হাজার চিকিৎসক ও পাঁচ হাজারের বেশি নার্স নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেছে সরকারি কর্ম কমিশন-পিএসসি। কিন্তুও সেই চাহিদাপত্রেও নেই মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের কথা। কিন্তু প্রয়োজনীয় মেডিকেল টেকনোলজিস্ট ছাড়া করোনাভাইরাস মোকাবেলার গুরুত্বপূর্ণ ধাপ, অর্থাৎ নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষার মাধ্যমে আক্রান্তদের শনাক্তের কাঙি্ক্ষত লক্ষ্যই অর্জন করা যাবে না বলে মনে করেন আইইডিসিআরের সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মুশতাক হোসেন।

সরকার চিকিৎসক-নার্সের সংখ্যা বাড়াচ্ছে ভালো কথা। কিন্তু মেডিকেল টেকনোলজিস্টও নিয়োগ দিতে হবে। আমরা টেস্টের সংখ্যা বাড়ানোর জন্য চাপ দিচ্ছি, কিন্তু মেডিকেল টেকনোলজিস্ট ছাড়া স্যাম্পল কালেকশন কে করবে? এটা তো অপেশাদার

লোকদের কাজ না। অন্যদিকে ঝুঁকিপূর্ণ এই কাজে নিয়োজিত থাকা টেকনোলজিস্টরা বলছেন, লোকবল স্বল্পতায় তাদের একেকজনের ঘাড়ে অনেক কাজ জমছে। বাংলাদেশ এখনও কোভিড-১৯ রোগের নমুনা পরীক্ষায় প্রতিবেশী দেশগুলো থেকে পিছিয়ে আছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মান অনুযায়ী, একজন চিকিৎসকের বিপরীতে তিনজন নার্স এবং পাঁচজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট থাকার কথা। কিন্তু বাংলাদেশের চিত্রটি ভিন্ন। গত ২১ মার্চের হিসাব অনুযায়ী, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অধীনে বর্তমানে ২৫ হাজার ৬১৫ জন চিকিৎসক কাজ করছেন। ডবিস্নউএইচওর মানদ- অনুযায়ী, এক্ষেত্রে মেডিকেল টেকনোলজিস্টের পদের সংখ্যা হওয়ার কথা ছিল এক লাখ ২৮ হাজার ৭৫টি। কিন্তু স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে মেডিকেল টেকনোলজিস্টের পদই আছে সাত হাজার ৯২০টি। এর বিপরীতে কর্মরত আছেন আরও কম পাঁচ হাজার ১৮৪ জন। প্রতি ১০ হাজার মানুষের জন্য শূন্য দশমিক ৩২ জন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট কাজ করছেন। আর ল্যাব টেকনোলজিস্টের দুই হাজার ১৮২টি পদের মধ্যে এক হাজার ৪১৭ জন কর্মরত আছেন। নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার কাজটি করেন ল্যাব টেকনোলজিস্টরাই।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিভিন্ন জেলা থেকে মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের প্রেষণে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে আনা হয়। ফলে জেলাগুলোয় নমুনা সংগ্রহ করতে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। বিভিন্ন জেলা এমনকি নারায়ণগঞ্জেও অনেকে অভিযোগ করেছেন, নমুনা সংগ্রহের জন্য হটলাইনে ফোনের পর ফোন করেও সাড়া পাওয়া যায় না। ঢাকা, নারায়ণগঞ্জের পর সবচেয়ে আক্রান্তের এলাকা গাজীপুরে মেডিকেল টেকনোলজিস্ট আছেন ১৭ জন। এর মধ্যে শহীদ তাজউদ্দীন আহমেদ মেডিকেল কলেজে চারজন এবং হাসপাতালে সাতজন। প্রত্যেকটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েএকজন করে এবং টঙ্গীতে ২৫০ শয্যা হাসপাতালে একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট। মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মোটামুটি কাজ চললেও ঝামেলায় আছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্রে কর্মীরা। একটি স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্রে একজন টেকনোলজিস্ট জানান, তাকে দৈনিক ২৫ থেকে ৩৫টি নমুনা সংগ্রহ করতে হয়। এজন্য দুজন সহযোগী নিয়েছেন তিনি। তারা রোগীর নাম ঠিকানা লিখে দেওয়া থেকে প্রাথমিক কিছু কাজ করে দেয়। নমুনা সংগ্রহের কাজটা আমি করি। কিন্তু প্রতিদিন এতগুলো নমুনা সংগ্রহ করতে জান বাইর হয়ে যায়। গাজীপুর জেলায় তো অনেক রোগী, সবার স্যাম্পল নেওয়া সম্ভব হয় না। নরসিংদীর পলাশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্রে মেডিকেল টেকনোলজিস্ট দিলীপ কুমার দাস জানান, উপজেলায় কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে। ফলে কন্টাক্ট ট্রেসিংসহ নানা কাজে তাকে নমুনা সংগ্রহ করতে হয়। এখানে দুজন মেডিকেল টেকনোলজিস্টের একজনকে ঢাকার একটি হাসপাতালে প্রেষণে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আমিই বাড়ি বাড়ি গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করি। আবার আমাকেই দৌড়াতে হয় হাসপাতালে। বিষয়টি নিয়ে আমাকে হিমশিম খেতে হচ্ছে। একই অবস্থা নরসিংদীর বাকী উপজেলাগুলোতেও। স্বাধীনতা মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পরিষদের যুগ্ম মহাসচিব মুহম্মদ মাহবুব হাসান নতুন চিকিৎসক ও নার্স নিয়োগকে স্বাগত জানালেও মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা উপেক্ষিত থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, ডবিস্নউএইচওর গাইডলাইন অনুযায়ী ২ হাজার চিকিৎসকের বিপরীতে ১০ হাজার মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগ পাওয়ার কথা। কিন্তু দুঃখজনক হল তারা আলোচনাতেই নেই। বাংলাদেশ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের হিসাবে দেশে ৩০ হাজার ৬৭ জন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট রয়েছেন। সংগঠনের সভাপতি আলমাস আলী খান জানান, বর্তমান পরিস্থিতিতে মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা ঝুঁকি নিয়ে অমানুষিক পরিশ্রম করছেন। কয়েকটি হাসপাতালে সংক্রমণের পর চিকিৎসক-নার্সরা কোয়ারেন্টিনে গেলেও মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের পাঠানো হচ্ছে না। কারণ টেকনোলজিস্টরা কোয়ারেন্টিনে গেলে সেখানে কাজ করার কেউ থাকে না। তিনি বলেন, সাময়িকভাবে কিছু মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগ দিলেও এই পরিস্থিতিতে কাজ করা কিছুটা সহজ হবে।

এখন যদি হাজার বিশেক টেকনোলজিস্টও নেওয়া যায় তাহলেও এই মহামারী কিছুটা মোকাবেলা করা সম্ভব হবে। সেটা অস্থায়ী ভিত্তিতে হলেও। আমাদের এই মুহূর্তে একটাই দাবি। অবশ্য পরিস্থিতি বিবেচনায় ১২০০ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগের জন্যও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) মো. বেলাল হোসেন। কিন্তু অচিরেই এই নিয়োগ হওয়ার সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. হাবিবুর রহমান খান। তিনি বলেন, সরকারের পে-রোলে কাউকে আনতে হলে সিস্টেমের মধ্যে আনতে হয়। টাকা পয়সারও ব্যাপার আছে। ওটা (টেকনোলজিস্ট নিয়োগ) এখনও চিন্তাভাবনার মধ্যে আছে। এখনও প্রসেস শুরু হয়নি।

হাবিবুর রহমান জানিয়েছেন, বেকার, প্রশিক্ষণে থাকা মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের তালিকা তৈরি করছেন তারা। এছাড়া অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণ দিয়ে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। নমুনা সংগ্রহ কাজে খুব একটা সমস্যা হচ্ছে না। আমরা তাদের কাজে লাগানোর চেষ্টা করছি। অনেক জায়গায় চিকিৎসকরাও নমুনা সংগ্রহ করছেন। স্বাস্থ্যকর্মীদের অনেককে প্রশিক্ষণ দিয়ে আমরা কাজ চালানোর চেষ্টা করছি। প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করে তারা শুধু নমুনা সংগ্রহ করছেন।